বুধবার মঞ্চে দৃশ্যকাব্যর নতুন নাটক ‘অত:পর প্রণয়’

এন্টারটেইনমেন্ট ডেস্ক

মঞ্চে আসছে নাট্যদল ‘দৃশ্যকাব্য’র নতুন প্রযোজনা ‘অত:পর প্রণয়’। উইলিয়াম শেক্সপিয়রের ‘রোমিও এন্ড জুলিয়েট’ অবলম্বনে এর রূপান্তর করেছেন রুমা মোদক এবং নির্দেশনায় এইচ এম মোতালেব। ৩১ জানুয়ারি (বুধবার) সন্ধ্যা ৭টায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে মঞ্চস্থ হতে যাচ্ছে এই নাটকটি।

নাটকের গল্পে দেখা যাবে, একই শহরে বসবাসকারী হিন্দু ধর্মাবলম্বি চৌধুরী পরিবার ও মুসলিম ধর্মাবলম্বি সৈয়দ পরিবার। এই দুই পরিবারের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বংশ মর্যাদা, আভিজাত্য আর প্রভাব প্রতিপত্তি প্রতিষ্ঠার দ্বন্দ বিরাজমান। কিন্তু দীর্ঘদিনের দ্বন্দ-সংঘাত আর ধর্মের বেড়াজালকে উপেক্ষা করে চৌধুরী পরিবারের মেয়ে জুঁই এবং সৈয়দ পরিবারের ছেলে রুম্মান দুজন দুজনার ভালোবাসার বাঁধনে বাঁধা পড়ে। তাদের এই প্রেমকে কেন্দ্র করে উভয় পক্ষের দুই জন আকস্মিকভাবে খুন হয়। ফলে সেই খুনের প্রভাবে শহর জুড়ে সাম্প্রদায়িত দ্বাঙ্গার সৃষ্টির উপক্রম হয়।

অন্যদিকে শহরের এক ধনী ব্যবসায়ী পিয়ারী মহনের সাথে জুঁই-এর বিবাহের দিন ধার্য করা হয়। ফলে এই অবস্থা থেকে পরিত্রাণ ও জুঁই-রুম্মানের ভালোবাসার সম্পর্ককে অটুট রাখতে লোলিত কবিরাজের স্মরনাপন্ন হয় জুঁই। লোলিত কবিরাজ এই সমস্যার সমাধান হিসেবে জুঁইকে এক বিশেষ ওষুধ প্রদান করে যা পান করলে একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত জুঁই অচেতন থাকবে, সবাই তাকে মৃত্য হিসেবে জানবে। পরবর্তীতে সে যখন চেতনা ফিরে পাবে তখন রুম্মানের সাথে তার বিবাহের ব্যবস্থা করবেন।

জুঁই কবিরাজের পরিকল্পনা অনুযায়ী এক রাতে ঐ বিশেষ ওষুধ পান করে এবং সকালে সবাই দেখে জুঁই মারা গেছে। জুঁই এর মৃত্যুর খবর রুম্মানের কাছে পৌছায়। রুম্মান জুঁইকে একনজর দেখতে ছুটে আছে। প্রিয়তমার মৃত্যু মেনে নিতে পারায় রুম্মান আত্মহত্যা করে। তার কিছুক্ষণ পরেই জুঁইয়ের চেতনা ফিরে আসে এবং সে দেখে রুম্মান নিহত। ভালোবাসার মানুষকে পাওয়ার জন্য জুঁই এতো কিছু করলো সেই মানুষটাই আজ নিহত। তাই জুঁইও আত্মহত্যা করে। আর এভাবেই দুটি নিষ্পাপ জীবনের পরিসমাপ্তি ঘটে। এমন সব নানা নাটকীয় ঘটনা নিয়ে নাটক- ‘অত:পর প্রণয়’।

নাটকটিতে বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন- এইচ এম মোতালেব, মৌসুমী বেগম (ঢাকাইয়া), রিমন সাহা, নাইরুজ সিফাত, স্পর্শ বণিক, আশরাফুল আরিয়ান, চিত্রা সাহা, আবুল হাসনাত, দীপু মাহমুদ, আরিফ হোসেন প্রত্যয়, মো. সারফুল ইসলাম, আতিকুর রহমান, তন্ময় কুমার হাজরা, মহসীন শিবলু। মঞ্চপরিকল্পনায়- ফজলে রাব্বি সুকর্নো, আলোক পরিকল্পনায়- ফারুক খান টিটু, আবহসংগীত পরিকল্পনায়- হামিদুর রহমান পাপ্পু, পোস্টার ডিজাইন- দিবেন্দু উদাস, কোরিওগ্রাফি- রাজীব রেজা ও হামিদুর রহমান পাপ্পু, দ্রব্য সামগ্রী- শরিফুল ইসলাম মামুন, মঞ্চ ব্যবস্থাপনায়- রিমন সাহা ও আশরাফুল আরিয়ান এবং প্রযোজনা অধিকর্তা- মনিরুল ইসলাম বেলাল।

ছবি: দৃশ্যকাব্য নাট্যদলের সৌজন্যে

সারাবাংলা/এএসজি

Scroll to Top