বার্সা-ম্যানইউর হাড্ডাহাড্ডি লড়াই শেষ সমতায় | খেলা

<![CDATA[

ইউরোপা লিগের প্লে অফের প্রথম লেগে আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে লড়াই জমিয়ে তুলেছিল দুই জায়ান্ট ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও বার্সেলোনা। রেড ডেভিলরা জয়ের সম্ভাবনা দেখালেও চার গোলের ম্যাচটি শেষ হয়েছে সমতায়।

বৃহস্পতিবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) ক্যাম্প ন্যুতে ম্যাচের ৭৫ মিনিট পর্যন্ত এগিয়ে থেকেও ২-২ গোলের সমতা নিয়ে মাঠ ছাড়ে ম্যানইউ। বার্সার হয়ে গোল দুটি করেন মার্কোস আলোনসো ও রাফিনিয়া। ম্যানইউর হয়ে একটি গোল করেন মার্কাস রাশফোর্ড। অন্য গোলটি ছিল আত্মঘাতী।

শুরু থেকে আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে জমে উঠে ইংলিশ ও স্প্যানিশ জায়ান্টের মধ্যে লড়াই। বল দখলে বার্সা এগিয়ে থাকলেও, শট নেয়ার ক্ষেত্রে দুদলই ছিল প্রায় সমানে সমান। উভয়ই গোলের উদ্দেশ্যে ১৮টি শট নেয়। যার মধ্যে বার্সার ৮টি গোলমুখে থাকলেও, ম্যানইউর ছিল ৫টি শট।

যদিও প্রথমার্ধে কেউই পায়নি গোলের দেখা। ২৮ মিনিটে লিড পেতে পারতো ম্যানইউ। কিন্তু ওয়ান অন ওয়ান পজিশনে পেয়েও টের স্টেগেনকে পরাস্ত করতে ব্যর্থ হন বাউট ওয়েগহর্স্ট। চার মিনিটে পর মার্কাস রাশফোর্ডকে হতাশ করেন বার্সা গোলরক্ষক। ৩৭ মিনিটে ডিফেন্ডারদের ভুলে গোল হজম করতে বসেছিল ম্যানইউ। তবে এ যাত্রায় দাভিদ দে হেয়া অক্ষত রাখেন জাল। বাঁ দিকে ঝাপিয়ে পড়ে ঠেকিয়ে দেন জর্দি আলভার শট।

আরও পড়ুন: নেইমারকে কিনতে বৈঠকে চেলসি ও পিএসজির প্রেসিডেন্ট

প্রথমার্ধ গোলশূন্য থাকলেও দ্বিতীয়ার্ধে চার বার জালের দেখা পায় বল। ম্যাচের ৫০ মিনিটে বার্সাকে লিড এনে দেন মার্কোস আলোনসো। কর্নার থেকে ব্রাজিলিয়ান তারকা রাফিনিয়ার ক্রস হেডের সাহায্যে জালে জড়ান আলোনসো। এর এক মিনিট না যেতেই সমতায় ফেরে সফরকারীরা। দলকে লড়াইয়ে ফেরান মার্কাস রাশফোর্ড। ফ্রেদের পাস ডি বক্সে পেয়েই ডান প্রান্ত ধরে বার্সার ডিফেন্ডারদের পেছনে ফেলে রাশফোর্ড পরাস্ত করেন টের স্টেগেনকে।

৫৫ মিনিটে ডি-বক্সের বাইরে থেকে দুর্দান্ত এক শট নেন রাফিনিয়া। কিন্তু সেটা বাজপাখির মতো উড়ে গ্লাভসবন্দি করে নেন দে হেয়া। এর তিন মিনিট পর বার্সার ডিফেন্ডারদের ভুলে এগিয়ে যায় ম্যানইউ। ডানপ্রান্তে আক্রমণে উঠে গোলবারের সামনে বল বাড়ান রাশফোর্ড। জটলার মধ্যে কয়েকজনের পায়ে লেগে শেষ পর্যন্ত জুলেস কুন্দের শরীর স্পর্শ করে বল জড়ায় জালে।

তবে ম্যানইউকে নিজেদের ঘরের মাঠ থেকে জয় নিয়ে ফিরতে দেননি কুন্দে-রাফিনিয়ারা। ৭৬ মিনিটে কুন্দের পাস দখলে নিয়ে ডি-বক্সের বাইরে থেকেই সতীর্থদের উদ্দেশে ক্রস বাড়ান রাফিনিয়া। ছয় গজ সামনে থেকে পা বাড়ান রবার্ট লেভানদোভস্কি। বল তার পায়ে স্পর্শ না করলেও লাফিয়ে উঠে আড়াআড়ি হয়ে প্রবেশ করে জালে। অসহায় আত্মসমর্পণ করেন দে হেয়া।

আরও পড়ুন: শিগগিরই মাঠে নামছে ব্রাজিল

শেষদিকে জয়ের জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে দুদলই। কিন্তু একপাশে টের স্টেগেন আর অন্যপাশে দে হেয়া চীনের প্রাচীর হয়ে দাঁড়ানোয় ড্র নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয় দুদলকে। 

আগামী ২৩ ফেব্রুয়ারি ওল্ড ট্রাফোর্ডের দ্বিতীয় লেগে মুখোমুখি হবে দুদল। সেখানেই নির্ধারণ হবে কারা পাচ্ছে ইউরোপা লিগের শেষ ষোলোর টিকিট।

 

]]>

Scroll to Top